শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪
৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘যেনতেন’ প্রস্তুতিতে হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ এই বৃত্তি পরীক্ষা

প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা ২৯ ডিসেম্বর

এ বছর প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা হবে ২৯ ডিসেম্বর। এ জন্য পঞ্চম শ্রেণির চলমান বার্ষিক মূল্যায়ন (বার্ষিক পরীক্ষা) ১৯ ডিসেম্বর শেষ করে ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে উত্তরপত্র দেখার কাজ শেষ করার নির্দেশ দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

আর পঞ্চম শ্রেণির মূল্যায়নের ফলাফল প্রকাশ করতে হবে ২১ ডিসেম্বর। এ জন্য পঞ্চম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষার উত্তরপত্র প্রতিদিন মূল্যায়ন করতে হবে।

বাংলা, ইংরেজি, গণিত ও বিজ্ঞান বিষয়ে হবে প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা

প্রতিটি বিষয়ে ২৫ নম্বর করে মোট ১০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। এক দিনেই দুই ঘণ্টায় হবে এ পরীক্ষা।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার দেশের সব উপজেলা বা থানা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে বৃত্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি গ্রহণের বিষয়ে এই নির্দেশ দেওয়া হয়।

এতে বলা হয়, ২৯ ডিসেম্বর বেলা ১১টায় উপজেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হবে প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা। তার আগে ২৭ ডিসেম্বরের মধ্যে বিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থীদের প্রবেশপত্র বিতরণসহ অন্যান্য কাজ করতে হবে।

জানা গেছে, প্রতিটি বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির বাছাই করা ১০ শতাংশ শিক্ষার্থী এ বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবে। বাকিরা এ সুযোগ পাবে না।

বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষার জন্য ১০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে বাছাই করা হবে।

যদিও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনাপত্রে কীভাবে ১০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে বাছাই করা হবে, সেটি উল্লেখ করা হয়নি। এ নিয়ে শিক্ষকেরা বিভ্রান্তিতে আছেন।

এর আগে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, বাংলা, ইংরেজি, গণিত ও বিজ্ঞান বিষয়ে হবে এ বৃত্তি পরীক্ষা। প্রতিটি বিষয়ে ২৫ নম্বর করে মোট ১০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। এক দিনেই দুই ঘণ্টায় হবে এ পরীক্ষা।

‘যেনতেন’ প্রস্তুতিতে হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ এই বৃত্তি পরীক্ষা

গত ২৮ নভেম্বর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক আন্তমন্ত্রণালয় সভায় আকস্মিকভাবে এ বছর প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়; যদিও শিক্ষাসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, বছরের শেষে এসে হঠাৎ প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেওয়া একদিকে শিক্ষার্থীদের জন্য যেমন ক্ষতিকর বিষয় হবে, তেমনি নতুন শিক্ষাক্রমের আলোকে ভবিষ্যৎ শিক্ষাব্যবস্থায় যে পরিবর্তন আসবে, তার জন্যও নেতিবাচক হবে।

এখন প্রতিদিন বার্ষিক পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়ন করতে গিয়ে তাড়াহুড়া করে সঠিক মূল্যায়ন কতটা হবে, সেটিও একটি বড় প্রশ্ন। আবার বৃত্তি পরীক্ষাও হবে ৪ বিষয় মিলিয়ে মাত্র ১০০ নম্বরের।

সব মিলিয়ে ‌‘যেনতেন’ প্রস্তুতিতে গুরুত্বপূর্ণ এই বৃত্তি পরীক্ষা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কারণ, সাধারণত এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা হয়ে থাকে বহু আগে থেকে ঘোষণা দিয়ে।

একসময় বাছাই করা শিক্ষার্থীদের নিয়ে হতো প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা। সেটি বাদ দিয়ে ২০০৯ সালে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীন পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য শুরু হয় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা।

এতে সব শিক্ষার্থীই বৃত্তি পাওয়ার প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারত; যদিও পিইসি পরীক্ষা নিয়ে ছিল সমালোচনা। করোনার সংক্রমণ পরিস্থিতি ও নতুন শিক্ষাক্রমের রূপরেখা বিবেচনায় নিয়ে তিন বছর ধরে পিইসি পরীক্ষা হচ্ছে না।

আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে প্রথম, ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে চালু হচ্ছে নতুন শিক্ষাক্রম। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য শ্রেণিতেও তা বাস্তবায়ন করা হবে, যেখানে প্রথাগত পরীক্ষাকে কম গুরুত্ব দিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই ধারাবাহিক মূল্যায়নের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

এ অবস্থায় বছরের একেবারে শেষবেলায় এসে আকস্মিকভাবেই এ বছর সেই পুরোনো ব্যবস্থার মতো প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

২৯ ডিসেম্বর বেলা ১১টায় উপজেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হবে প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা। তার আগে ২৭ ডিসেম্বরের মধ্যে বিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থীদের প্রবেশপত্র বিতরণসহ অন্যান্য কাজ করতে হবে।

থেকে আরও পড়ুন

 কোটা বৈষম্য নিরসনের দাবিসহ 'বাংলা ব্লকেড' কর্মসূচিতে সারাদেশে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ ও...

 শিক্ষাখাতে উচ্চতর গবেষণা সহায়তা কর্মসূচির আওতায় গবেষণা প্রকল্পের জন্য ২২ লাখ টাকা বরাদ্দ পাচ্ছেন...

 সরকার কর্তৃক জারিকৃত বৈষম্যমূলক সর্বজনীন পেনশন স্কিম বিধিমালা প্রজ্ঞাপন থেকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্তি প্রত্যাহারের...

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন কর্তৃক ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় (বুটেক্স) শিক্ষকবৃন্দ সর্বজনীন...